• ঢাকা
  • বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২৬ মে, ২০২৩
সর্বশেষ আপডেট : ২৬ মে, ২০২৩

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে চেতনানাশক খাওয়ায় ইমামের সর্বস্ব নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা

সুবর্ণচর প্রতিনিধি  : সুবর্ণচরে চেতনানাশক খাওয়ায় এক মসজিদের পেশ ইমাম ও তাঁর পরিবারের  সদস্যদের অজ্ঞান করে মূল্যবান মালামাল নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। এর মধ্যে মোটরসাইকেল, গয়না, টাকা রয়েছে।
বৃহস্পতিবার  রাতে চরআমান উল্যাহ ইউনিয়নের সাতাশ দ্রোণ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে পরিবারের স্বজনরা জানিয়েছেন।
তবে, পুলিশ খবরটি পাওয়া মাত্র ঘটনার স্থল পরিদর্শন করেন বলে জানিয়েছে।
তাদের আত্মীয় শিক্ষক আহমেদ উল্যা জানান, শুক্রবার সকালে অচেতন অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে চরজব্বার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকের পরামর্শে  উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
নোয়াখালী সদর হাসপাতালে ভর্তি আছেন হাফেজ মাওলানা মো. দেলোয়ার হোসেন (৪২), মাছুমা খাতুন (৩৫), আবু দাউদ (৩)। হাফেজ মাওলানা মো. দেলোয়ার হোসেন সাতাশ দ্রোণ জামে মসজিদের পেশ ইমাম ও একই এলাকার বাসিন্দা।
শিক্ষক আহমেদ উল্যা বলেন, বৃহস্পতিবার  রাত ১১টার দিকে হাফেজ মো. দেলোয়ার হোসেনের পরিবারের লোকজন রাতে খাওয়ার পর সবাই এক সঙ্গে ঘুমাতে যায়। কোনো দুর্বৃত্ত চক্র কৌশলে আগেই তাদের খাবারের সঙ্গে চেতনানাশক মিশিয়ে রেখেছিল। ফলে তারা সবাই অচেতন হয়ে পড়ে।
আহমেদ উল্যা বলেন, দুর্বৃত্তরা হাফেজ দেলোয়ারের শোবার ঘরের দরজা খুলে একটি মটরসাইকেল, দুটি মোবাইল ফোন সেট, স্বর্ণালংকার, নগদ টাকাসহ অন্তত ৪ লাখ টাকার মালামার নিয়ে যায়।
চরআমান উল্যাহ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, হাফেজ দেলোয়ারের বাড়ির পাশে শ্বশুর বাড়ি হওয়ায় শুক্রবার সকাল ৭টার পর পাশের নানার বাড়িতে থাকা  ৫ বছর বয়সী শিশু পুত্র এসে মা-বাবাকে ডাকাডাকি করলে কেউ ঘুম থেকে না ওঠায় কান্নাকাটি চিৎকার করতে থাকে। তার চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা এসে তাদের অজ্ঞান অবস্থায় দেখতে পান।
চরজব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেব প্রিয় দাশ বলেন,  খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। লিখিত অভিযোগ সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন