• ঢাকা
  • রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর, ২০২৩
সর্বশেষ আপডেট : ২৩ নভেম্বর, ২০২৩

নির্বাচনের তারিখ পিছানোর বিষয়ে সুযোগ আমাদের বিবেচনায় রয়েছে – নোয়াখালীতে নির্বাচন কমিশনার

মাহবুবুর রহমান, বিশেষ প্রতিনিধি : আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনকে সুন্দর করার লক্ষ্যে বড় দল গুলোর উপস্থিতির জন্য নির্বাচনের তারিখ পিছানোর সুযোগ আমাদের বিবেচনায় রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার আনিসুর রহমান।

বুধবার (২২ নভেম্বর) বিাকলে জেলা প্রশাসক কক্ষে এক মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন ইসি আনিসুর রহমান।

তিনি বলেন, আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে নির্বাচনকে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন কর। নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি আমাদের দায়িত্ব নয়। এটা রাজনৈতিক দলের দায়িত্ব বা যারা প্রার্থী হবেন তাদের দায়িত্ব। আমরা সংবিধান মেনে সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজন করব।
এক প্রশ্নের জাবাবে বিএনপির নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে জানতে চাইলে ইসি আনিসুর রহমান বলেন, একটি বড় দলের অনুপস্থিত রয়েছে যদি তারা নির্বাচনে আসতে চায় তাহলে সে ক্ষেত্রে আমাদের নির্বাচনের তারিখ পিছিয়ে নেওয়ার বিবেচনা রয়েছে। এর জন্য আমাদের যায়গা রয়েছে।

বিদেশীদের পর্যবেক্ষণের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার জানান, আমরা চাই যত বেশি বিদেশি পর্যবেক্ষক থাকবে তত বেশি নির্বাচনটি সুন্দর গ্রহণযোগ্য বলে মনে হব। এই ক্ষেত্রে আমরা তাদের অংশগ্রহণের কথা বিবেচনা করে ২৬শে নভেম্বরের পরিবর্তে ৩০ শে নভেম্বর বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

ইসির ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ৭ জানুয়ারি সংসদ নির্বাচন হবে। তফসিল অনুযায়ী, সংসদ নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ৩০ নভেম্বর। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৭ ডিসেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ ১৮ ডিসেম্বর। মনোনয়পত্র জমা দেওয়ার আর মাত্র এক সপ্তাহের মতো বাকি থাকলেও এখনো দাবি আদায়ে রাজপথে আন্দোলনে ব্যস্ত বিএনপি

তিনি আরো বলে, আমরা প্রতিটি জেলায় একটি সুস্থ, সুন্দর নির্বাচন গ্রহণযোগ্য করার লক্ষ্যে নির্বাচনের সাথে সংশ্লিষ্ট যারা আছেন তাদেরকে সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালানার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বিকেলে নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষ্মীপুর তিন জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা ও পুলিশ সুপারসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং নির্বাচন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন তিনি।

এ সময় নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও প্রশাসনের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন

  • বিশেষ প্রতিবেদন এর আরও খবর