• ঢাকা
  • রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২৮ নভেম্বর, ২০২৩
সর্বশেষ আপডেট : ২৮ নভেম্বর, ২০২৩

নোয়াখালী ৬টি আসনেই নাঙ্গল মার্কার প্রার্থী থাকছে নোয়াখালী-৪ আসনে মোবারক হোসেন আজাদ এর শক্ত অবস্থান

নিউজ ডেস্ক : ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ঘোষণার পরদিন ২৮৭ আসনে প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে সংসদে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি।
গত সোমবার (২৭ নভেম্বর) বিকেলে বনানীতে জাপা চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেন দলের মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু। এর মধ্যে নোয়াখালীর ছয়টি আসন রয়েছে।

ঘোষণা অনুযায়ী নোয়াখালী-১ (চাটখিল-সোনাইমুড়ী) ফজলুল করিম মো. ইয়াসিন, নোয়াখালী-২ (সেনবাগ-সোনাইমুড়ী) মো. তালেবুজ্জামান, নোয়াখালী-৩ (বেগমগঞ্জ) ফজলে এলাহী সোহাগ মিয়া, নোয়াখালী-৪ (সদর-সুবর্ণচর) মোবারক হোসেন আজাদ, নোয়াখালী-৫ (কোম্পানীগঞ্জ-কবিরহাট) ব্যারিস্টার খাজা তানভীর আহমেদ এবং নোয়াখালী-৬ (হাতিয়া) মুশফিকুর রহমান।

নোয়াখালী-৪ (সদর-সুবর্ণচর) আসনের মোবারক হোসেন আজাদ এর আগের সংসদ নির্বাচনেও প্রার্থী ছিলেন। এই আসনে তার শক্ত অবস্থান রয়েছে। মোবারক হোসেন আজাদ ছাত্র রাজনীতি থেকেই থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত রাজনীতিই করেন। তার সম্পর্কে মাইজদী বাজারের ইব্রাহিম বলে দ্রব্য মূল্য, সন্ত্রাসসহ নানা কারণে আওয়ামী লীগের উপর মানুষ বিরক্ত। বিএনপি ভোটে অংশ নিচ্ছে না, সুষ্ঠ নির্বাচন হলে নোয়াখালী -৪ আসনে নাঙ্গলের প্রাথী বিজয়ী হবে।

মোবারক হোসেন আজাদ দৈনিক নোয়াখালীর কথাকে বলেন, আমি নির্বাচিত হলে এই আসনের উন্নয়নে কাজ করে যাবো। নদী ভাঙ্গন বন্ধ, বিমান বন্দরসহ এই আসনের জনগণের উন্নয়নে সব সময় পাশে পাবে আমাকে। আমি সকলে ভোট ও দোয়া প্রার্থী।

২০০৮ সালের নবম সংসদ নির্বাচন থেকেই আওয়ামী লীগ, ১৪ দল ও জাতীয় পার্টি আসন সমঝোতা করে ভোটে অংশ নিচ্ছে। তবে এবার কোনো জোট বা কারও সঙ্গে আসন সমঝোতায় না যাওয়ার কথা গত বুধবার জানিয়েছিলেন মুজিবুল হক চুন্নু। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি কোনো জোটে যাবে না, ৩০০ আসনেই নির্বাচন করবে। আমরা কারো সঙ্গে আসন সমঝোতায় যাব না।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ৩০ নভেম্বর, বাছাই ১-৪ ডিসেম্বর, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল ও শুনানি ৬-১৫ ডিসেম্বর এবং ১৭ ডিসেম্বরের মধ্যে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে। প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনী প্রচারণা চলবে ১৮ ডিসেম্বর থেকে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত। ভোট গ্রহণ হবে ৭ জানুয়ারী।

আরও পড়ুন

  • নির্বাচন এর আরও খবর