• ঢাকা
  • সোমবার, ১৭ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২ জানুয়ারি, ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট : ২ জানুয়ারি, ২০২৪

নোয়াখালী-৪ আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে নৌকা ও ট্রাকে

নিউজ প্রতিবেদন : নোয়াখালী-৪ (সদর-সুবর্ণচর) আসনটি বরাবরের মতো গুরুত্বপূর্ণ। এই জেলা সদরে আওয়ামী লীগ না স্বতন্ত্র প্রার্থীর জয় হবে কোনো শিবিরই তা নিশ্চিত নয়। সাধারণ ভোটার, রাজনীতিবিদ ও বিশ্লেষকসহ প্রায় সবাই বলছেন, সদরের নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই জমে উঠেছে। সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে কথা বলে এমন আভাস পাওয়া গেছে।

জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নোয়াখালী-৪ (সদর-সুবর্ণচর) আসনে চারজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
তারা হলেন, আওয়ামী লীগের একরামুল করিম চৌধুরী (নৌকা), স্বতন্ত্র অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন (ট্রাক), জাতীয় পার্টির মোবারক হোসেন আজাদ (লাঙ্গল) ও ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের মোহাম্মদ আবদুল আলীম (চেয়ার)। এবছর ২১ ইউনিয়নের এই আসনে মোট ভোটকেন্দ্র রয়েছে ১৯৬টি এবং মোট ভোটার সংখ্যা ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৭৯৯ জন।

নোয়াখালী-৪ আসন ঘুরে দেখা যায়, নৌকা, ট্রাক ও লাঙ্গলসহ বিভিন্ন প্রতীকের পোস্টারে ছেঁয়ে গেছে সদরের অলিগলি। বাংলা হিন্দি গানের প্যারোডিতে চলছে প্রার্থীদের প্রচার। মোড়ে মোড়ে চায়ের কাপেও ভোটের ঝড়। জেলার অন্যান্য আসনেও সদরের ভোট নিয়ে চলছে তুমুল আড্ডা। এদিকে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই উৎকণ্ঠা বাড়ছে ভোটারদের মধ্যে। তাদের মধ্যে আলোচনা একটিই- কে হচ্ছেন আগামীর সংসদ সদস্য?

এদিকে, সব প্রার্থীই নিজেদের অবস্থান তুলে ধরে ভোটারদের কাছে যাচ্ছেন। মাইকিং, পোস্টার-লিফলেট বিতরণ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ডিজিটাল কন্টেন্ট ও ইলেকট্রনিক ডিভাইসের প্রচারে মুখর আসনটি। আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের তিনবারের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী দিনরাত ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। অন্যদিকে, স্বতন্ত্রপ্রার্থী এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহিন নিজের গ্রহণযোগ্যতা ও ব্যক্তিত্ব দিয়ে নির্বাচনকে উৎসব মুখর করতে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এই আসনের প্রার্থীদের নিয়ে ভোটারদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। তাদের কেউ মন্তব্য করছেন নৌকা এগিয়ে, কেউ বলছেন ট্রাককেও পেছনে ফেলা যাবে না। তারা বলছেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী একরামুল করিম চৌধুরী বিভিন্ন সময়ে সবার পাশে দাঁড়ান, খরচও করছেন। আবার কেউ কেউ বলছেন ট্রাক প্রতিকের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহিনকে ভোট দিবেন। আবার কেউ বলছেন- টাকায় ভোট হয় না। ফলে শেষ দিকে নৌকার পক্ষেই ভোটের জোয়ার উঠতে পারে।

লাঙ্গল প্রতিকের জাতীয় পার্টির মোবারক হোসেন আজাদ বলেন, আমরা চাই সুন্দরভাবে ভোট হোক, মানুষ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করুক। আমি মানুষের কাছে যাচ্ছি, ভোট চাচ্ছি। কোনো দিক থেকে লাঙ্গলকে পিছনে রাখার কারণ নেই। অনেক ভোট জাতীয় পার্টির আছে।

জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী শিহাব উদ্দিন শাহিন বলেন, নির্বাচনকে উৎসবমুখর করতে চেষ্টা করছি। মানুষ পরিবর্তন চায়, তারা বহিরাগত এমপি চায় না। সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে কৌশল করে নয়, ভালোবাসা দিয়েই মন জয় করা যায়। প্রধানমন্ত্রীর নিরলস চেষ্টায় দেশ আজ বিশ্বের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। তার সময়োপযোগী সিদ্ধান্তে আজ আমরা উন্নয়নের শিখরে পৌঁছে যাচ্ছি। এলাকার জনগণ আমাকে নির্বাচিত করবেন, ইনশাআল্লাহ।

এদিকে তিনবারের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী বলেন,বঙ্গবন্ধুর নৌকা, সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৌকা, আওয়ামী লীগের নৌকা, বিজয়ের মার্কা নৌকা। এই নৌকার বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না। এলাকার জনগণ ভুল করবে না, যোগ্য ব্যক্তিকেই নির্বাচিত করবেন। আমি বিমানবন্দর করতে চাই, ইপিজেড করতে চাই, সোনাপুর থেকে সুবর্ণচর পর্যন্ত রেললাইন নিতে চাই । উন্নয়নের রূপকার বঙ্গবন্ধুকন্যাকে আবার প্রধানমন্ত্রী দেখতে চায় বাংলাদেশ। তিনি থাকলে দেশের উন্নয়ন হয়, তিনি থাকলে দেশ বিশ্বের দরবারে সমাদৃত হয়।

আরও পড়ুন