• ঢাকা
  • রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট : ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

গ্রামের নিরীহ মানুষকে বিদেশে পাঠানোর কথা বলে টাকা হাতিয়ে নিতো জামাল

স্টাফ রিপোর্টার : বিদেশে নেয়ার নাম করে সুবর্ণচরসহ ফেনী, কুমিল্লা, ঢাকা, চট্রগ্রামের বিদেশে যেতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের কাছ থেকে ভিসা , টিকেট, মেডিকেল, পুলিশ ভেরিফিকেশনসহ নানা অযুহাতে কোটি কোটি টাকা আতœসাৎকারি চরজব্বর থানায় কুখ্যাত প্রতারক চক্রের মূলহোতা জামাল উদ্দিন ভুট্টু (৩২) কে গ্রেফতার করে চরব্বর থানা পু্লশি।

চরজব্বর থানায় একাধিক যুবকের অভিযোগের ভিত্তিতে নোয়াখালী পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান এর দিক নির্দেশনায় চরজব্বর থানার অফিসার ইনচার্জ রফিক্লু ইসলামের তত্বাবধানে একাধিকবার অভিযান শেষে ২৮ জানুয়ারী (বুধবার) রাত ১ টা ৪০ মিনিট সময় সুবর্ণচর উপজেলার ৩ নং চরক্লার্ক ইউনিয়ন তার বাড়ী সংলগ্ন বন্ধুর বাড়ী বাড়ী থেকে চরজব্বর থানার চৌকশ পুলিশ অফিসার নুরুল ইসলাম সঙ্গিয় ফোর্স নিয়ে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃত প্রতারক চক্রের মূল হোতা জামাল উদ্দিন ভুট্টু (৩২), উপজেলার ৩ নং চরক্লার্ক ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের কেরামতপুর গ্রামের কামাল ডুবাইওয়ালা বাড়ীর প্রবাসী মোঃ কামাল উদ্দিন পুত্র।

মামলার বাদী ভুক্তভোগী চরজুবিলী ইউনিয়নের পশ্চিম চরজব্বর গ্রামের জয়নাল আবেদিনের পুত্র মোঃ সিরাজ উদ্দিন (৩৪) বলেন, হারিছ চৌধুরী বাজারে প্রতারক জামাল আল জিহাদ ট্রাভেলস নামে একটি প্রতিষ্ঠান শরু করে, জামাল উদ্দিন বিভিন্ন ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে যে টাকা লেনদেন ককরতো তা সিরাজের দোকানের বিকাশ নাম্বার থেকে উত্তোলন করতো এভাবে লেনদেনের সূত্রপাত ধরে জামাল তার কাছ থেকে ৪ লাখ ২৫ হাজার টাকা ধার করে। সে থেকে মাসের পর মাস পার হয়ে গেলেও প্রতারক জামাল তার টাকা ফেরত দেয়নি। এ বিষয়ে সিরাজ বাদী হয়ে চরজব্বর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন মামলা নং (১২ তাং ২০২৪। প্রতারক জামালের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ সিনিয়ার জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, আমলী আদালত নং- ০৮ নোয়াখালী এর দায়রা-৫৮০/২২ মামলা চলমান আছে মর্মে জানা যায়।

এর আগে চরবাটা ইউনিয়নের ফখরুল ইসলাম ফখরুল, চরক্লার্ক ইউনিয়নের মোঃ হৃদয় তার নামে ২ টি পৃথক অভিযোগ করে। গ্রেফতারের পর পর থানায় ভিড় করতে থাকে শতশত ভুক্তভোগী ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

মামলাল এজাহার সূত্রে জানাযায়, বিদেশে নেবার কথা বলে জামাল এর কাছে প্রতারনার শিকার হন এনায়েত উল্যাহ পাখি (৩৫), কাছ থেকে ২ লাখ ১০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় জামাল, মোঃ বাহার (৪১), এর নিকট হইতে বিমান টিকেটের কথা বলে ৮১ হাজার টাকা, ফখরুল ইসলাম (৪০) এর নিকট হইতে বিমান টিকেট ও ভিসা প্রসেসিং এর কথা বলিয়া ৯০ হাজার টাকা, মোঃ লোকমান হোসেন (২৯) এর নিকট ইতে ভিসা প্রসেসিং ও বিমান টিকেট এর কথা বলে ৮২ হাজার টাকা, মোঃ হৃদয় (২৫) এর কাছ থেকে বিমান টিকেটের কথা বলিয়া ৪৪ হাজার টাকা, রাজিব মজুমদার (২৯) এর কাছ থেকে বিমান টিকেটের কথা বলিয়া ৬৩ হাজার টাকা, শারমিন আক্তার (২১) এর স্বামীর বিদেশে বিমান টিকেটের কথা বলে ৭৪ হাজার টাকা, মোঃ শাকিল (২৪) এর নিকট হইতে বিদেশে যাওয়ার মেডিকেল করানোর আশ্বাস দিয়ে ১৭ হাজার টাকা, মোঃ এনায়েত উল্যাহ (৪০) এর নিকট হইতে বিদেশে প্রেরণের কথা বলিয়া ১ লাখ ১০ হাজার টাকা, মোঃ নূর নবী (২৬) এর মাধ্যমে মোঃ নিরব নামীয় ব্যক্তির নিকট হইতে বিমান টিকেটের কথা বলিয়া ৪৭ হাজার টাকা, মোঃ এমরান হোসেন (৪১) এর নিকট হইতে টিকেট ক্রয় করিয়া টিকেটের মূল্য বাবদ ৩৯ হাজার টাকা।

এছাড়াও ইমরান হোসেনের ৫২ হাজার টাকা, ইব্রাহিমের ৯০ হাজার টাকা, জসিম উদ্দিনের কাছ থেকে ৩ লাখ টাকা, রিয়াজের কাছ থেকে ১ লাখ ৩২ হাজার টাকাসহ একাধিক যুবক থেকে ভিসা প্রসেসিং, টিকেট, মেডিকেল, পাসপোর্ট, পুলিশ ক্লিয়ারেন্সের কথা বলে লাখ লাখ টাকা সুকৌশলে হাতিয়ে নেয়। যতজনের কাছ থেকে টাকা নিয়েছে আজ অবধি কোন ব্যক্তির কাজ করেনি প্রতারক জামাল।

পুলিশের জিঞ্জাসাবাদে প্রতারক জামাল আল-জিহাদ ট্রাভেলস্ এন্ড ট্যুরস্ নামীয় একটি অফিস খুলিয়া দীর্ঘদিন যাবত অত্র থানা এলাকায় বিভিন্ন নিরীহ মানুষকে বিদেশে পাঠানোর কথা বলিয়া প্রতারণা করে আসিতেছিলো মর্মে স্বীকার করে।

প্রতারক জামালকে গ্রেফতার করার জন্য পুলিশ সুপার এবং চরজব্বর থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলামের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ভুক্তভোগীরা।
চরজব্বর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতে এবং নোয়াখালী পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান এর সার্বিক দিক নির্দেশনায় ২/৩ বার অভিযান ব্যাহত হবার পর ২৮ ফেব্রæয়ারী তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়, তার বিরুদ্ধে মামলা নিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। চরজব্বর থানায় প্রতারক, চুরি, ডাকাতি, মাদক, সন্ত্রাসহ যে কোন অসামাজিক কর্ম বন্ধে পুলিশ সর্বদা প্রস্তুত রয়েছে।

আরও পড়ুন

  • বিশেষ প্রতিবেদন এর আরও খবর