• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২৮ মার্চ, ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট : ২৮ মার্চ, ২০২৪

বহুরুপী দ্বীন মোহাম্মদ থেকে এজেন্ট ব্যংককে বাঁচাতে চান নারী উদ্যোক্তা সাবিনা

স্টাফ রিপোর্টার : মালিক অসুস্থ থাকায় এজেন্ট ব্যাংক পরিচালনায় থাকা কর্মচারী নিজেকে ব্যাংকের মালিক দাবি করছেন। যেনো রক্ষক থেকে বনে গেলেন ভক্ষক। বহুরুপী প্রতারক দ্বীন মোহাম্মদ থেকে এজেন্ট ব্যাংককে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা চাইলেন নারী উদ্যোক্তা সাবিনা ইয়াছমিন।
বেগমগঞ্জ উপজেলার রাজগঞ্জ ইউনিয়নের মজুমদারহাট ব্যাংক এশিয়া এজেন্ট শাখার স্বত্বাধিকারী নারী উদ্যোক্তা সাবিনা ইয়াছমিন সদর উপজেলার লক্ষ্মীনারায়ণপুর গ্রামের সাত্তার মিয়া বাড়ির শহিদ উল্যাহ আনছারের মেয়ে। অন্যদিকে দ্বীন মোহাম্মদ সদর উপজেলার মাইজদী গ্রামের মোহাম্মদ উল্যার ছেলে।

জানা যায়, ২০১৮ সালে নারী উদ্যোক্তা সাবিনা ইয়াছমিন বেগমগঞ্জ উপজেলার রাজগঞ্জ ইউনিয়নে ব্যাংক এশিয়ার একটি এজেন্ট ব্যাংক শাখা পরিচালনা শুরু করেন। একমাত্র এজেন্ট ব্যাংক হওয়ায় দ্রুতই জনপ্রিয় উঠে। ব্যাংকের মূলধন বাড়াতে নাজমা বেগম শিরীনসহ চার নারীকে যুক্ত করেন সাবিনা ইয়াছমিন। এরপর শারিরীক অসুস্থতার কারনে বিশ্বাস করে শিরীনের স্বামী দ্বীন মোহাম্মদকে ব্যাংক পরিচালনার (পজিটিভ পে) দায়িত্ব দেওয়া হয়। ২০২৩ সালে মতের অমিল হওয়ায় সেই চার নারীকে লভ্যাংশ প্রদান করেন সাবিনা। দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেওয়া দ্বীন মোহাম্মদকেও। কিন্তু প্রতারণার মাধ্যমে তখনকার স্বাক্ষরিত একটি চেক রেখে দেয় দ্বীন মোহাম্মদ। ২০২৪ সালে এসে ৩৫ লাখ টাকা লিখে ব্যাংকটির মালিক দাবি করছেন দ্বীন মোহাম্মদ, দিয়েছেন উকিল নোটিশ। প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়েছেন জবাই করে হত্যা করবেন সাবিনাকে। যেনো রক্ষক থেকে বনে গেলেন ভক্ষক। বহুরুপী দ্বীন মোহাম্মদ থেকে এজেন্ট ব্যাংককে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা চাইলেন নারী উদ্যোক্তা সাবিনা ইয়াছমিন।

সাবিনা ইয়াছমিন বলেন, আমার সাথে দ্বীন মোহাম্মদের সাথে কোনো লেনদেন ছিল না। তার স্ত্রী নাজমা বেগম আমাদের ব্যাংকের শেয়ার ছিল। আমার অসুস্থ থাকাকালীন সময়ে দ্বীন মোহাম্মদ দায়িত্ব ছিল। তখন আমার স্বাক্ষরিত চেক ব্যবহার করে টাকা উত্তোলন করতেন। এক বছর আগে তার স্ত্রীর শেয়ার আমি কিনে নিয়েছি৷ তখন থেকে উনার সাথে আমার কোনো সম্পর্ক নাই। আমি তাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম আমার স্বাক্ষরিত কোনো চেক তার কাছে আছি কিনা। তিনি বলেছেন নাই। আমি তারপর থানায় একটা জিডি করে রেখেছি। বর্তমানে আমাকে উকিল নোটিশ পাঠান যে আমার কাছে নাকি ৩৫ লাখ পায়। আমাকে জবাই করে হত্যা করবে বলেও সে আমাকে হুমকি দিচ্ছে।

সাবিনা ইয়াছমিন আরও বলেন, আমি একজন নারী উদ্যোক্তা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারী উদ্যোক্তাদের উৎসাহ দেন। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এর প্রতারণার বিচার চাই। দ্বীন মোহাম্মদ আমার ব্যাংক এবং আমার ক্ষতি করবে বলে হুমকি ধমকি দিচ্ছে। সে হলো বহুরুপী প্রতারক। দায়িত্ব থাকাকালীন চেক রেখে দিয়ে সে এখন সে প্রতারণার আশ্রয় নিচ্ছে। তার কাছে আরও চেক থাকতে পারে। আমার ব্যাংক ও আমার পরিবারের নিরাপত্তা চাই।

রাজগঞ্জ ইউনিয়নের প্রবাসী রাসেল সিদ্দিকী বলেন, আমরা প্রবাস থেকে এজেন্ট ব্যাংকটার মাধ্যমে রেমিট্যান্স প্রেরণ করি। আমাদের বাজারের প্রথম ব্যাংক এটি। নারী উদ্যোক্তা সাবিনা ইয়াছমিন ব্যাংকটি এখানে আনায় আমাদের অনেক উপকার হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে দ্বীন মোহাম্মদ যা করছে তা খারাপ করছে। এতে করে মানুষ ব্যাংকের বিষয়ে খারাপ ধারণা নিচ্ছে এবং গ্রাহক হারাচ্ছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে আসা দরকার। তাহলে নিরাপদ ব্যাংকিং সেবা নিশ্চিত হবে।

বিভিন্ন কাগজপত্র পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ২০১৮ সালের জুলাইয়ের ২ তারিখ থেকে পজিটিভ পে নোটিশ ফর চেক পেমেন্টের জন্য দ্বীন মোহাম্মদকে দায়িত্ব দেওয় হয়। তারপর থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত সাবিনা ইয়াছমিনের স্বাক্ষরিত প্রায় দেড় শতাধিক চেক ব্যবহার করেন। তারপর সাবিনা সুস্থ হয়ে ব্যাংকে নিয়মিত দায়িত্ব পালন শুরু করেন। তারপর মতের অমিল হলে ২৩ সালের ১ এপ্রিল সিদ্ধান্ত ক্রমে চার লাখ মুলধন আর তিন লাখ টাকা লাভ দিয়ে নাজমা বেগম থেকে শেয়ারটি কিনে নেন। যার প্রমাণ হিসেবে একটি লিখিত কাগজ করা হয় যেখানে বীর মুক্তিযোদ্ধা এনায়েত উল্যাহ ও দ্বীন মোহাম্মদ সাক্ষী ছিলেন। কিন্তু ফেব্রুয়ারির ২৮ তারিখ ৩৫ লাখ টাকা পাবেন বলে সাবিনাকে একটি উকিল নোটিশ প্রদান করেন। সাবিনার দাবি, দ্বীন মোহাম্মদ দায়িত্ব থাকাকালীন সময়ে কৌশলে চেক রেখে দিয়েছেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা এনায়েত উল্যাহ বলেন, দ্বীন মোহাম্মদ কোনো টাকা পাবেন এটা আমাদেদ জানা ছিল না। লেনদেন ছিলো দ্বীন মোহাম্মদের স্ত্রী নাজমা বেগমের সাথে। যেদিন সভা হয়েছিলো সেদিন আমাদের উপস্থিতিতে দ্বীন মোহাম্মদের স্ত্রীকে লভ্যাংশসহ সাত লাখ টাকার চেক দেওয়া হয়। এসব বিষয়ে রাজগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর চৌধুরী সেলিম জানেন। কিন্তু বর্তমানে এসে দ্বীন মোহাম্মদ নাকি ৩৫ লাখ টাকা পাবেন। এসব বিষয়ে আমরা জানতাম না।

রাজগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর চৌধুরী সেলিম বলেন, দ্বীন মোহাম্মদের স্ত্রী সাত লাখ টাকা পেয়েছে তা আমি জেনেছি। সেই টাকা সে তুলে নিয়েছি। এটা একটা মীমাংসিত ঘটনা। হঠাৎ করে দ্বীন মোহাম্মদ এসে ৩৫ লাখ টাকা পাওয়ার কথা জানাচ্ছে। এসবের কিছু আমার জানা ছিলো না।

নিজেকে ব্যাংকের মালিক দাবি করে দ্বীন মোহাম্মদ বলেন, আমার স্ত্রীর সাথে লেনদেন ক্লিয়ার হওয়ার পর ব্যাংক একজন ক্রয় করবে বলে সিদ্ধান্ত হয়। তাই আমার কাছে সাবিনা ইয়াছমিন ব্যাংকটি বিক্রি করে দেয়। এটা সেই চেক। আমি দায়িত্ব থাকাকালীন কোনো চেক নয়। আমি টাকা পাই তাই উকিলের মাধ্যমে নোটিশ দিয়েছি।

ব্যাংক এশিয়ার মাইজদী ব্রাঞ্চের ম্যানেজার মো. মিজানুর রহমান বলেন, আমি বিষয়টি জানি। একটি ব্যাংক শুরু হলে কিছু অর্থের প্রয়োজন হয়। ফলে সাবিনা ইয়াছমিন শেয়ার নিয়েছিলেন। সেটি আবার লভ্যাংশসহ বুঝিয়ে দিয়েছেন। সেটেল হওয়ার পর যে কাগজপত্র হয়েছে সেখানে কিন্তু দ্বীন মোহাম্মদের স্বাক্ষর আছে।

আরও পড়ুন

  • বিশেষ প্রতিবেদন এর আরও খবর