• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ১২ নভেম্বর, ২০২৩
সর্বশেষ আপডেট : ১২ নভেম্বর, ২০২৩

সোনাইমুড়ীতে গ্রেপ্তার আতঙ্কে বিএনপি’র নেতাকীর্মরা

মোশাররেফ হোসেন সুমন, উপজেলা প্রতিনিধি, সোনাইমুড়ী : চলমান সরকার বিরোধী আন্দোলনে হরতাল অবরোধ, ঢাকায় মহাসমাবেশে যোগদানের ফলশ্রুতিতে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে পুলিশের গ্রেপ্তার আতঙ্কে রয়েছে বিএনপি ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের হাজার হাজার নেতাকর্মী।গ্রেপ্তার এড়াতে নেতাকর্মীদের অনেকেই রাজনৈতিক কর্মসূচি ব্যতিত সচরাচর চলাফেরা করছে না। নেতাকর্মীদের অনেকেই রাতে নিজস্ব ঘরে ঘুমোয় না।

গত ২৮ অক্টোবর’২৩ ঢাকায় মহাসমাবেশ ও পরবর্তী রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন ও নাশকতায় বিষেশ ক্ষমতা আইনে বিভিন্ন মামলায় সোনাইমুড়ী উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ারুল হক কামাল, সাবেক ছাত্রদাল নেতা রুবেল ভূঁইয়াসহ প্রায় অর্ধশত নেতাকর্মীদেরকে সোনাইমুড়ী থানা পুলিশ গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করেছে।। উপজেলা বিএনপি’র সদস্য সচিব মোহাম্মদ দীদার হোসেন জানায়, বিএনপি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের হাজারো নেতাকর্মী ঘর-বাড়ি ছাড়া। ঢাকার মহাসমাবেশ থেকে ফিরে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার গায়েবি মামলা থেকে বাঁচতে নেতাকর্মীরা কেউ বাড়ি-ঘরে থাকছেনা।

ঢাকার মহাসমাবেশে যোগ দিতে উপজেলা বিএনপি, পৌর বিএনপি, ইউনিয়ন বিএনপি ও বিভিন্ন ওয়ার্ড বিএনপির নেতাকর্মীসহ ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, শ্রমিক দল, ওলামা দল, জিয়া পরিষদ, কৃষক দল, তাঁতী দল ও মহিলা দলের কয়েক হাজার নেতাকর্মীরা ঢাকায় মহাসমাবেশে যোগদান করেন। মহাসমাবেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষে পুলিশ ও বিএনপি কর্মী নিহত ও আহত হওয়ার জেরে বিভিন্ন গায়েবি মামলা রুজু হয়। মহাসমাবেশ শেষে নেতাকর্মীরা এলাকায় আসলেও গ্রেফতার আতঙ্কে রয়েছে।থানা সূত্রে জানা যায়, সোনাইমুড়ী থানা পুলিশ ২৮ তারিখ রাতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে। বিএনপি-জামায়াতের নাশকতাকারী ২১ সদস্যকে গ্রেফতার করে। তাদের মধ্যে ১৬ জন বিএনপি ও ৫জন জামায়াতের সদস্য। এসময় তাদের হেফাজত থেকে পাঁচ টি সবুজ রংয়ের সেভেন আপের এর কাঁচের বোতল ও দুই টি সবুজ রংয়ের মাউন্টেন ডিউর কাঁচের বোতল, এগারটি বাঁশের লাঠি, একটি প্লাষ্টিকের বস্তায় রক্ষিত বিভিন্ন আকারের ২৬ টি ইটের টুকরা এবং একটি কালো রংয়ের পলিথিনে রক্ষিত কিছু ভাঙ্গা কাঁচের টুকরা উদ্ধার করে পুলিশ।

সোনাইমুড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ারুল হক কামাল (৬৫)ও সোনাইমুড়ী উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি রুবেলকেও গ্রেপ্তার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এবিষয়ে নোয়াখালী জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আব্দুর রহমান,ও জিসাস সভাপতি এডভোকেট খলিলুর রহমান, সোনাইমুড়ী পৌর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মেয়র মোতাহের হোসেন মানিক সহ জেলা নেতৃবৃন্দের অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, দেশে আইনের শাসন আছে বলে সাধারণ জনগণ মনে করে না । আওয়ামী সরকার রাষ্ট্রযন্ত্র ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করে সাধারণ মানুষের ভোটের অধিকার হনন করে একতরফা ভোটের মাধ্যমে রাষ্ট্রক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য বিরোধী মত দমন পীড়নে গণগ্রেপ্তার চালাচ্ছে। অনতিবিলম্ভে সরকারের পদত্যাগ সহ নিরপেক্ষ নির্দলীয় সরকারের অধিনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সহ জনগনের ভোটের অধিাকার ফিরিয়ে দিতে ও বিভিন্ন আন্দোলনে সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকারে পরিনত ও গ্রেপ্তারকৃত সোনাইমুড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি আনোয়ারুল হক কামাল,সাবেক ছাত্রনেতা রুবেল ভূঁইয়া সহ অর্ধশত নেতাকর্মীর মুক্তি সহ গণ গ্রেপ্তার বন্ধের দাবী জানায়।

আরও পড়ুন

  • সোনাইমুড়ী এর আরও খবর