• ঢাকা
  • শনিবার, ১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ১ মে, ২০২৩
সর্বশেষ আপডেট : ১ মে, ২০২৩

স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে ক্লাস নিলেন নোয়াখালীর ডিসি

নোয়াখালীর সদর উপজেলার পৌর কল্যাণ উচ্চ বিদ্যালয় পরিদর্শন গিয়ে ক্লাস নিয়েছেন নোয়াখালীর জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান। নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ইংরেজি ক্লাস নেন তিনি।

রোববার (৩০ এপ্রিল) দুপুর ১২টার দিকে প্রায় আধা ঘণ্টা ক্লাস নেন তিনি। এ সময় শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে অনুপ্রেরণা ও শিক্ষামূলক বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক।

ক্লাসে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান বলেন, নিয়মিত পড়াশোনা ছাড়া ভালো ফলাফল অর্জন করা সম্ভব নয়। অধ্যবসায়ী মানুষ সফল হবেই। মন দিয়ে পড়াশোনা করতে হবে। বাবা-মায়ের কথা শুনতে হবে। শিক্ষকরা যে পড়াশোনা দেন তা জমিয়ে রাখা যাবে না। প্রতিদিনের পড়া প্রতিদিন শেষ করতে হবে। কখনো হতাশ হবে না। আত্মবিশ্বাস নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।

তিনি আরও বলেন, স্বপ্ন থাকতে হবে তাহলে বড় হওয়া যাবে। যেটা ভালো লাগে না, সেটা করবে না। তোমরা চাইলেই দেশটা পরিবর্তন করে দিতে পার। তাই পড়াশোনার কোনো বিকল্প নেই। সত্যিকারের দেশপ্রেমিক হতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী হয়ে মানুষের সেবা করতে হবে। তথ্য ও প্রযুক্তির ভালো দিকগুলো গ্রহণ করতে হবে।

নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী স্নেহা চ্যাটার্জী বলেন, জেলা প্রশাসক স্যারকে কখনো সামনে থেকে দেখিনি। আজকে প্রথম দেখলাম। আমাদের কাছে খুব ভালো লেগেছে। এই স্মৃতি সারাজীবন মনে থাকবে।

উম্মে আয়মান নামে আরেক শিক্ষার্থী বলেন, ডিসি স্যার যখন ক্লাসে ঢোকেন, তখন বুঝতেই পারিনি তিনি জেলা প্রশাসক। ডিসি স্যারকে শিক্ষক হিসেবে পেয়ে আমরা আনন্দিত। তিনি আমাদের ক্লাস নেবেন কখনো কল্পনাও করিনি। আমাদের লেখাপড়া শিখে বড় হওয়ার উৎসাহ দিয়েছেন।

মারিসা বিনতে ফাইজা নামে আরেক শিক্ষার্থী বলেন, ডিসি স্যারের কেবল নাম শুনেছি। আজ দেখলাম স্যারকে। তিনি অনেক পরামর্শ দিয়েছেন। সবাই কথাগুলো মনোযোগ দিয়ে শুনেছি। আমরা মানার চেষ্টা করব।

বিদ্যালয়ের শিক্ষক আবদুল ওয়াদুদ বলেন, ডিসি স্যার আকস্মিক স্কুলে এসে বিভিন্ন শিক্ষার্থীর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করে লেখাপড়ার খোঁজ-খবর নিয়েছেন। এরপর শিক্ষকদের সঙ্গে স্কুলের নানা বিষয় নিয়ে মতবিনিময় করেছেন। আমরা স্যারকে এভাবে পেয়ে আমরা সবাই খুশি হয়েছি।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান বলেন, বিদ্যালয়ের নির্মাণ কাজের খবর নিতে আজ সেখানে গিয়েছিলাম। নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ক্লাসে গিয়েছি। তাদেরকে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছি। আজকের শিশু আগামীর ভবিষ্যৎ। ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে শিক্ষার্থীদের ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে।

এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) অজিত দেবসহ বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন

  • . এর আরও খবর