• ঢাকা
  • সোমবার, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ১৬ ডিসেম্বর, ২০২৩
সর্বশেষ আপডেট : ১৬ ডিসেম্বর, ২০২৩

বিদায় বেলায় কাঁদলেন ও কাঁদালেন এসপি শহীদুল ইসলাম

উপজেলা প্রতিনিধি, সদর : সহকর্মীদের চোখের জল আর ফুল সজ্জিত গাড়িতে রশি টেনে পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলামকে বিদায় দেওয়া হয়েছে। দীর্ঘ আড়াই বছর কর্মকালীন এ পুলিশ সুপারের সুনামের কোনো কমতি ছিল না। একই সঙ্গে পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক) এসপির সহধর্মীনি সীমা পরভীন নিশিকেও বিদায় সংবর্ধনা জানানো হয়।

শুক্রবার (১৫ ডিসেম্বর) বিকেলে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে প্রথাগতভাবে বিদায় দেয়া ফুলে সজ্জিত গাড়িতে ফুলের রশি বেঁধে পুলিশ লাইনস মাঠে বিদায় জানানো হয়। বিদায়ের আগে এসপি মো. শহীদুল ইসলামকে জেলা পুলিশের ব্যান্ড পার্টিসহ নানান ফুলে সজ্জিত গাড়িতে ফুলের রশি বেঁধে পুলিশ লাইন্স থেকে জানানো হয় বিদায়।

পুলিশ সুপার আবেগপ্রবণ হয়ে অশ্রুসিক্ত হন। একই সঙ্গে জেলা পুলিশের বিভিন্ন পদমর্যাদার কর্মকর্তা, পুলিশ সদস্যদের মধ্যে আবেগঘন এক পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) বিজয়া সেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম ও অপস) মোহাম্মদ ইব্রাহীম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. মোর্তাহীন বিল্লাহ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বেগমগঞ্জ সার্কেল) মো. নাজমুল হাসান রাজিব, সহকারী পুলিশ সুপার (হাতিয়া সার্কেল) মো. আমান উল্যাহ,সহকারী পুলিশ সুপার (চাটখিল সার্কেল) নিত্যানন্দ দাসসহ জেলা পুলিশের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মো. শহীদুল ইসলাম রংপুর সদর উপজেলার সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের সন্তান। শিক্ষা জীবনে তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) থেকে ২০০১ সালে স্নাতক ও ২০০৩ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি শেষে ২৫ তম বিসিএস (পুলিশ ক্যাডারে) ২০০৬ সালে পুলিশ বিভাগে যোগদান করেন। তিনি ২০২১ সালের ১ আগস্ট নোয়াখালী পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন ।

যোগদানের পর থেকে জেলার সবার কাছে মানবিক পুলিশ সুপার হিসেবে স্থান করে নেন মো. শহীদুল ইসলাম। তিনি যোগদানের পর থেকে ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজে হাত নেন। দায়িত্বভার গ্রহণের পর অল্প কিছুদিনের মধ্যেই নোয়াখালী জেলার জনগণের নিকট তিনি ঘনিষ্ট হয়ে যান তার কাজের মাধ্যমে। যোগদানের পরই এরপর ধারাবাহিকভাবে সুষ্ঠু ও শান্তিপুর্ণভাবে নির্বাচন উপহার দেওয়ায় জেলাবাসীর কাছে ব্যাপক প্রশংসিত হোন। বিভাগীয় কার্যক্রমের বিত্তের বাইরেও রয়েছে তাঁর নানাবিধ সামাজিক কর্মদ্যোগ।

সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে পুলিশ বিভাগের কার্যক্রমে দক্ষতা ও গতিশীলতা বৃদ্ধি, গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটন ও অপরাধীকে আইনের আওতায় আনা, পেশাগত দায়িত্ব পালনে দক্ষতা, কর্তৃব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের জন্যে ২০২২ সালের ৩ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) সেবা লাভ করেন নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম। এর আগে ২০১৯ সালে তিনি প্রথমবার এ পদক লাভ করেন।

আরও পড়ুন

  • . এর আরও খবর