• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি, ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট : ২১ জানুয়ারি, ২০২৪

মালয়েশিয়ায় বিশেষ অভিযানে ২ শতাধিক বাংলাদেশি আটক

মালয়েশিয়ায় বৈধ কাগজপত্র ছাড়া বসবাসসহ বিভিন্ন অপরাধে দুই শতাধিক বাংলাদেশিসহ ৫৬১ জনকে আটক করা হয়েছে। গত শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) গভীর রাতে দেশটির সেলাঙ্গর রাজ্যের বান্দার তাসিক কেসুমার বৈদুরি অ্যাপার্টমেন্টে বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন দেশটির অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক দাতুক রুসলিন জুসোহ। খবর-ফ্রিমালয়েশিয়াটুডেডটকম

আটক ব্যক্তিদের মধ্যে বাংলাদেশের ২০৫, মিয়ানমারের ২০০, নেপালের ৬৫, ইন্দোনেশিয়ার ৪৩, পাকিস্তানের ৩৮, শ্রীলঙ্কার ৩, কম্বোডিয়া, ভারত ও সিয়েরা লিওনের ২ জন করে এবং ক্যামেরুনের একজন রয়েছেন।

জানা যায়, মালয়েশিয়ায় বসবাসরত অবৈধ কর্মীদের জন্য ‘আরটিকে দুই দশমিক শূন্য’ নামের একটি বৈধকরণ প্রকল্প চালু করা হয়েছিল যা ২০২৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর শেষ হয়ে যায়। বৈধকরণের সময়সীমা শেষ হওয়ায় মালয়েশিয়াজুড়ে প্রায় প্রতিদিনই চলছে অবৈধ অভিবাসীবিরোধী অভিযান।

দেশটির ইমিগ্রেশন পুলিশের এমন সাঁড়াশি অভিযানে বাংলাদেশিদের মধ্যে বিরাজ করছে চরম আতঙ্ক। গ্রেপ্তারের আশঙ্কায় রয়েছেন বহু প্রবাসী।

মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগ এক বিবৃতিতে বলেছে, আবাসিক ভবনে অভিবাসী শ্রমিকরা গাদাগাদি করে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বসবাস করছেন। এতে স্থানীয়রা বিরক্ত হয়ে ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে গোপনে অভিযোগ করলে এই অভিযান চালান অভিবাসন বিভাগ।

এই অভিযানে অংশ নেন বিভিন্ন পদমর্যাদার অন্তত ৪৫৫ জন অভিবাসন পুলিশ। তাদের সহায়তা করেছিলেন জেনারেল মুভমেন্ট ফোর্স (পিজিএ) এর ৬০ জন কর্মকর্তা, জাতীয় নিবন্ধন বিভাগ (জেপিএন) এর ১২ জন কর্মকর্তা এবং মালয়েশিয়ার সিভিল ডিফেন্স ফোর্স (এপিএম) এর পাঁচজন সদস্য।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, বিদেশিরা লম্বা সময় ধরে এই এলাকায় থাকায় তারা ধীরে ধীরে নিজেদের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা শুরু করেন এবং এই এলাকাটিকে নিজেদের এলাকা হিসেবে পরিচিত করছেন।

আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলোর মধ্যে রয়েছে- কোনো পরিচয়পত্র না থাকা, অতিরিক্ত সময় অবস্থান করা এবং ইমিগ্রেশন আইন ১৯৫৯/৬৩ লঙ্ঘন করা। পরবর্তী তদন্ত ও ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তাদের বুকিত জলিল ইমিগ্রেশন ডিপোতে ১৪ দিনের প্রাথমিক রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন