• ঢাকা
  • সোমবার, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

সোনাইমুড়ীতে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

উপজেলা প্রতিনিধি, সোনাইমুড়ী : সোনাইমুড়ীতে পিতার মৃত্যুর ৩ দিন পরেই ঘর ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলায় জেল হাজতে মেয়ে জেসমিন আক্তার মুন্নি (৩৫)।

এই ঘটনার প্রতিবাদে এলাকাবাসী উপজেলার ভাওরকোট সরকারি বিদ্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করেছে।

শুক্রবার জুম্মার নামাজ শেষে কয়েকশত গ্রামবাসী এই মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। এসময় বক্তারা নিরীহ পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও হয়রানি বন্ধের দাবি জানান।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, উপজেলার জয়াগ ইউনিয়নের ভাওরকোট গ্রামের মৃত আব্দুল লতিফের ছেলে বাবুল হোসেন (৫৫) এর সাথে জমি জমার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে একই এলাকা মৃত গোলাম মাওলার ছেলে আবুল কালাম আজাদ ও মুরাদ হোসেন আকাশদের সাথে বিরোধ চলে আসছে। এনিয়ে আদালতে দেওয়ানী মামলা চলমান রয়েছে। দীর্ঘ বছর বাবুল হোসেন অসুস্থ থেকে গত ২ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা ৭টার দিকে মারা যান। তাকে বাড়ির কবরস্থানে মাটি দিতে গেলে আবুল কালাম আজাদ ও মুরাদ হোসেন আকাশসহ বহিরাগত ১০-১২ জন বাঁধা দেয়। এলাকাবাসী সুপারিশ করলেও প্রতিপক্ষরা মাটি দিতে দেয়নি। পরের দিন দুপুর ২টার দিকে নিহতের মেয়ে জেসমিন আক্তার ৯৯৯এ ফোন করে পুলিশ নিয়ে তাদের সামনে নিজেই পিতার কবর খুঁড়ে মৃতকে দাফন করে।

প্রতিপক্ষরা লাশ দাফনের রাতেই ৮ টার দিকে তাদের একটি ঘর ভাংচুর, মারধর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনার নাটক সাজিয়ে নোয়াখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলি আদালতে একটি সিআর মামলা করেন। যার নং-৩৪/২০২৪ ইং। এই মামলায় নিহতের স্ত্রী, মেয়ে, প্রবাসে বসবাসরত ছেলে ও মেয়ের জামাই, বোনের জামাই ও স্কুল পড়ুয়া নাতনীসহ এলাকাবাসী ১৬ জনেকে বিবাদী করা হয়। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বিবাদীদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেন। ৫ ফেব্রুয়ারী মৃত বাবুল হোসেনের মেয়ে আদালতে উপস্থিত হয়ে জামিন চাইলে তাকে বিজ্ঞ আদালত জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

মানববন্ধনে ইউপি সদস্য মঈনউদ্দীন খোকন, এলাকাবাসী আব্দুল হাই ভূইয়া ও মামুন বলেন, আবুল কালাম আজাদ ও মুরাদ হোসেন আকাশ এলাকায় ভূমিদস্যু ও মামলাবাজ হিসেবে পরিচিত। তাদের অত্যাচারে শুধু বাবুল হোসেনের পরিবার নয় এলাকার অধিকাংশ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। এরা এলাকায় আইনজীবী পরিচয় দিয়ে জনসাধারণকে ভয়ভীতি দেখায়।

মৃত বাবুল হোসেনের স্ত্রী আমেনা বেগম(৫০) এই ধরনের মিথ্যা মামলা ও হয়রানী থেকে মুক্তি পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আরও পড়ুন

  • সোনাইমুড়ী এর আরও খবর