• ঢাকা
  • সোমবার, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি, ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট : ২৩ জানুয়ারি, ২০২৪

কোচিংয়ে ক্লাস না করায় বেত্রাঘাত, অধ্যক্ষকে ঘুসি শিক্ষার্থীর

উপজেলা প্রতিনিধি, সুবর্ণচর : সূবর্ণচরে কোচিংয়ে ক্লাস না করায় দুই দাখিল পরীক্ষার্থীকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে। এ সময় বেত্রাঘাত খাওয়া শিক্ষার্থী অধ্যক্ষের মুখেও ঘুসি দেন। এতে তিনিও মৃদু আহত হয়েছেন।

রোববার (২১ জানুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার চরজুবিলী রব্বানীয়া ফাজিল (ডিগ্রি) মাদরাসায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী শিক্ষার্থী ও স্থানীয়রা জানান, মাদরাসার অধ্যক্ষ আবদুর রহমান সব দাখিল পরীক্ষার্থীকে অতিরিক্ত টাকা দিয়ে বাধ্যতামূলক কোচিং ক্লাস করতে নির্দেশ দেন। তার এ নির্দেশ অমান্য করায় পরীক্ষার্থী ছাত্র (১৬) ও আরেক ছাত্রীকে (১৫) ৫০ বেত করে আঘাত করতে থাকেন। এ ঘটনা দেখে তাদের আরেক সহপাঠী ছাত্রী (১৫) অজ্ঞান হয়ে পড়ে। এসময় বেত্রাঘাত খাওয়া ছাত্রকে ১৫-১৬ বেত দেওয়ার পর তিনি অধ্যক্ষ আবদুর রহমানকে মুখে ঘুসি মেরে বেরিয়ে যায়।

অজ্ঞান হয়ে যাওয়া ছাত্রীর বাবা মো. মিজান বলেন, দুপুরে মাদরাসা থেকে ফোন করে আমার মেয়ে অজ্ঞান হয়ে গেছে বলে জানানো হয়েছে। পরে আমি গিয়ে তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেই। তবে কেন অজ্ঞান হয়েছে তা জানানো হয়নি।

সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ মিয়া বলেন, বর্তমান সময়ে শিক্ষার্থীদের বেত্রাঘাত করা অমানবিক। শুনেছি ছাত্রকে মারার পর ছাত্রও অধ্যক্ষকে ঘুসি মারে। বিষয়টি অনাকাঙ্ক্ষিত।

জানতে চাইলে মাদরাসার অধ্যক্ষ আবদুর রহমান পরিচালনা কমিটির মিটিংয়ে আছেন পরে কথা বলবেন বলে ফোন কেটে দেন। পরে তাকে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এ ঘটনার পর অভিভাবকরা উত্তেজিত হয়ে পড়লে অধ্যক্ষকে নিয়ে পরিচালনা কমিটির সদস্যরা জরুরি সভা করে।

মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক বলেন, বিষয়টি ছাত্র-শিক্ষকের ভুল বুঝাবুঝি মাত্র। আমরা পরে মীমাংসা করে দিয়েছি।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কবির আহম্মদ বলেন, মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সদস্যরা এক হয়েছে শুনেছি। তবে কেন তারা এক হয়েছেন সেটা জানাননি। অভিযোগ পেলে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চরজব্বর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, বিষয়টি শুনেছি। তবে কোনো পক্ষ থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন